শিরোনাম :
লিটারে ৪ টাকা বেড়েছে বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম বিএনপি নির্বাচন ও গণতন্ত্রবিরোধী অবস্থান নিয়েছে: কাদের গরমে বারবার গোসল করছেন? জেনি নিন কী হচ্ছে শরীরের বাংলাদেশে বিক্রি করা নেসলের শিশুখাদ্য সেরেলাক নিয়ে ভয়ংকর তথ্য শুক্রবার শিল্পী সমিতির নির্বাচন, কার বিপক্ষে কে লড়ছেন বিএনপির চিন্তাধারা ছিল অন্যের কাছে হাত পেতে চলবো: প্রধানমন্ত্রী মিয়ানমারে বিদ্রোহী-নিয়ন্ত্রিত শহরে কোণঠাসা জান্তা আইপিএল থেকে ডাক পেয়েও যে কারণে যেতে পারেননি শরিফুল সুন্দরবন সংশ্লিষ্ট পেশাজীবী ও স্থানীয় সুধী সমাজের সাথে জনসচেতনতা মূলক মতবিনিময় ১১০০ কোটি টাকার প্রকল্পে কলা-রুটি বাবদ ব্যয় হবে ৪৫০ কোটি

মামলা করেও রেহাই পাচ্ছেনা স্বামী-শ্বশুরের নির্যাতনের শিকার আসমা

সেলিম হায়দার
  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ২৭ আগস্ট, ২০১৯
  • ১৬৪

সাতক্ষীরার তালায় যৌতুকের দাবিতে নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে স্বামীর বিরুদ্ধে স্ত্রীর দায়ের করা মামলার প্রতিশোধ নিতে এবার দ্বিতীয় বিয়ে করেছেন স্বামী আলমগীর হোসেন (৪০)। এদিকে আদালতে বিচারাধীন নির্যাতন মামলার হাত থেকে বাঁচতে ও স্ত্রীর অমতে দ্বিতীয় বিয়ে করায় ফের মামলার ভয়ে প্রথম স্ত্রীকে বাড়িতে ফিরিয়ে নিতে মিমাংসার নামে নতুন করে মারপিটের ঘটনা ঘটেছে। গত ২৪ আগস্ট সকালে স্বামী আলমগীর তার পিতাসহ ৭/৮ জনকে নিয়ে স্ত্রী আসমা বেগমের পিত্রালয় উপজেলার বালিয়াদহে আসেন। এসময় কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে আলমগীরসহ তার সাথে আসা স্বজনরা আসমাকে বেধড়ক মারপিট করে মিমাংশা না করেই চলে যায়। এসময় পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে তালা হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে দু’দিনের চিকিৎসা শেষে তাকে পিত্রালয়ে নেয়া হয়েছে।

অভিযোগে জানাগেছে যে,২০০৪ সালের ২০ ডিসেম্বর তালা উপজেলার বালিয়াদহ গ্রামের মোঃ জোহর আলী গোলদারের মেয়ে আসমা খাতুনের সাথে একই উপজেলার শকদহা গ্রামের শওকত আলী সরদারের ছেলে আলমগীর হোসেনের ইসলামী শরিয়ত মোতাবেক বিয়ে হয়। বিয়ের সময় নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার ও অন্যান্য উপঢৌকনসহ আড়াইলক্ষ টাকা প্রদান করেন।

পারিবারিক সূত্র জানায়, দাম্পত্য জীবনে তাদের এক কন্যা খাদিজাতুল কোবরা (১১) রয়েছে। এমতাবস্থায় আলমগীর হোসেন স্ত্রী-সন্তানদের বাড়িতে রেখে ২০১১ সালের দিকে আসমার পিত্রালয়ের আর্থিক সহযোগিতায় দুবাই যান। সেখানে প্রায় ৩ বছরের কর্মজীবন শেষে ২০১৪ সালের দিকে দেশে ফিরে আসেন। মূলত ঐসময় থেকেই আসমার জীবনে নেমে আসে দুর্দশা। প্রায়ই তার স্বামী শ্বশুর-শাশুড়ীর পরামর্শে কারণে-অকারণে ব্যাপক শারিরীক-মানষিক নির্যাতন শুরু করে। তবে সন্তানের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে আসমা সব কিছু মুখ বুজে সহ্য করে।

সর্বশেষ চলতি ২০১৯ সালের ১৩ জানুয়ারী নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে আসমা বেগম বাদী হয়ে স্বামী আলমগীর ও শ্বশুর শওকত আলীকে আসামী করে সাতক্ষীরা বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালতে যৌতুক নিরোধ আইনের ৩ ধারা মোতাবেক একটি মামলা করেন। এরপর তারা সংঘবদ্ধভাবে তাকে মারপিট করে একমাত্র মেয়ে খাদিজাতুল কোবরা কেড়ে নিয়ে আসমাকে বাড়ী থেকে বের করে দেয়। বর্তমানে মামলাটি বিচারাধীন রয়েছে।

এদিকে আলমগীর তার বিরুদ্ধে মামলা করায় স্ত্রীর বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নিতে ফের পাটকেল এলাকায় জনৈকা মহিলাকে দ্বিতীয় বিয়ে করে পাটকেলঘাটা এলাকায় বাসা ভাড়া করে বসবাস করে আসছে। সম্প্রতি স্ত্রীর দায়ের করা মামলার হাত থেকে পরিত্রাণ ও স্ত্রীর অমতে দ্বীতিয় বিয়ে করায় ফের মামলার আশকায় মিমাংশার নামে নতুন নাটক করেন আলমগীর ও তার পিতা শওকত। আসমাকে বাড়ীতে ফিরিয়ে নিতে ২৪ আগস্ট আসমার পিত্রালয়ে এসে ফের তাকে মারপিট করেছে। সর্বশেষ ঘটনায় আদালতে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত ২০২১
Design and Developed by IT Craft in association with INTENT