শিরোনাম :
দেশকে ‘নব্য রাজাকার’মুক্ত করার হুঁশিয়ারি আ.লীগ নেতাদের বৃহস্পতিবার সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঘোষণা ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের আর কখনো পাঠদান করব না: সহকারী অধ্যাপক উম্মে ফারহানা আলিপুরে পুনর্বাসন নিশ্চিত করতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ দেবহাটার সরকারি কেবিএ কলেজ ও সোনালী ব্যাংক পিএলসি’র চুক্তি স্বাক্ষর রড-কুড়াল নিয়ে ঢামেকে ঢুকে আহত আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা দেবহাটায় জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ বিষয়ক সভা ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক পুনঃনির্মাণের দাবিতে মানববন্ধন কোটাবিরোধীদের হটাতে পুলিশের অ্যাকশন শুরু, টিয়ারগ্যাস নিক্ষেপ আন্দোলনকারীদের হটিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের দখলে

সাতক্ষীরা সিটি কলেজের অধ্যক্ষ আবু সাঈদের দুর্নীতি তদন্তে দুদক

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেটের সময় : বুধবার, ৯ অক্টোবর, ২০১৯
  • ৩৩৪

১২লক্ষ টাকায় জালিয়াতির মাধ্যমে সাতক্ষীরা সিটি কলেজের প্রভাষক পদে নিয়োগের অভিযোগে অধ্যক্ষ আবু সাঈদ বিরুদ্ধে তদন্তে নেমেছে দুর্নীতি দমন কমিশন(দুদক)। গত ১ আগস্ট দুদকের প্রধান কার্যালয়ের এনফোর্সমেন্ট ইউনিট এর ০৪.০১. ০০০. ১০৯. ২৮.০০১.১৯৭৫৭ নং স্মারকে বিষয়টি তদন্তের জন্য সাতক্ষীরা সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দপ্তরে প্রেরণ করা হয়। কিন্তু সে সময় হজব্রত পালনের জন্য অধ্যক্ষ আবু সাঈদ সৌদী আরবে অবস্থান করায় ফিরে না আসা পর্যন্ত তদন্ত করা সম্ভব হচ্ছে না মর্মে দুদকে ৪ আগস্ট ২০১৯ তারিখে সদর উপজেলা নির্বাহী দেবাশীষ চৌধুরী এক পত্র প্রেরণ করেন।

হজ্বব্রত সম্পন্ন করে ইতোমধ্যেই অধ্যক্ষ আবু সাঈদ দেশে ফিরেছেন। ফলে দ্রুত অভিযোগের তদন্ত সম্পন্ন করা হবে জানিয়েছেন সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার দেবাশিষ চৌধুরী।

জানা গেছে, সাতক্ষীরা জেলায় অবস্থিত সাতক্ষীরা সিটি কলেজ ১৯৮০ সালে এমপিভুক্ত হয়। উক্ত প্রতিষ্ঠানের বর্তমান দূর্নীতিবাজ অধ্যক্ষ আবু সাঈদ অবৈধ লাভের আমায় সরকারি পরিপত্র উপেক্ষা করে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে সিনিয়র শিক্ষকদের হটিয়ে জুনিয়র শিক্ষকদের নিয়োগ দিয়েছেন। অথচ ভুক্তভোগী শিক্ষক গত ২৬ মে ২০১০ তারিখে ২য় শিক্ষক হিসেবে হিসাব বিজ্ঞান বিভাগে যোগদান করেন। সে সময় তার ইনডেক্স নাম্বার ছিলো।

নিময়নুযায়ী ইনডেক্স নাম্বার সরকারি করণের জন্য ভুক্তভোগী শিক্ষক অধ্যক্ষের কাছে আবেদন করলে দুর্নীতিবাজ অধ্যক্ষ আবু সাঈদ ১২ লক্ষ টাকা ঘুষ দাবি করেন। কিন্তু ভুক্তভোগী শিক্ষক তার ঘুষের টাকা দিতে না পারায় ১২লক্ষ টাকা ঘুষ গ্রহণ করে অবৈধভাবে এবং জাল জালিয়াতির মাধ্যমে রুনা লায়লা নামক ব্যক্তিকে উক্তপদে পদায়ন করেন। যা সম্পূর্ণ নীতি বহির্ভূত। রুনা লায়না গত ১ মে ২০১৭ তারিখে ইনডেক্স নাম্বার পেয়েছেন। যার ইনডেক্স নং ৩০৯৪৩৬৪। উক্ত বিষয়ে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ভুক্তভোগি শিক্ষক দুর্নীতি দমন কমিশনের অভিযোগ দায়ের করেন।

এবিষয়ে সাতক্ষীরা সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার দেবাশিষ চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি এই তথ্য কোথা থেকে জেনেছি তা জানতে চেয়ে বলেন, কোন তদন্তাধীন বিষয়ে বক্তব্য দেওয়া যাবে না।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত ২০২১
Design and Developed by IT Craft in association with INTENT